প্রয়াত গোলাম আজম মাষ্টার ছিলেন দৃঢ়চেতা আদর্শের প্রতীক শোক সভায় বক্তারা

হাটশ হরিপুর দি ওল্ড কুষ্টিয়া হাইস্কুলের প্রয়াত প্রধান শিক্ষক গোলাম আজম স্মরণে শোক সভা

এনামুল হক রাসেল এনামুল হক রাসেল

,সম্পাদক, দ্য বিডি রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১১:০১ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১, ২০২০
হাটশ হরিপুর দি ওল্ড কুষ্টিয়া হাইস্কুলের প্রয়াত প্রধান শিক্ষক গোলাম আজম স্মরণে শোক সভা

নিজস্ব প্রতিনিধি: কুষ্টিয়া সদর উপজেলার হাটশ হরিপুর দি ওল্ড কুষ্টিয়া হাইস্কুলের প্রয়াত প্রধান শিক্ষক গোলাম আজম(সাইফুল আজম) স্মরণে শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

 

গতকাল বিকেল ৪টায় বিদ্যালয়ের কবি আজিজুর রহমান মিলনায়তনে জাতীয় মুক্তি কাউন্সিলের উদ্যেগে অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় সভাপতিত্ব করেন ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশন কুষ্টিয়া জেলা ইউনিট চীফ বীর মুক্তিযোদ্ধা আনছার আলী।

 

 

এসময় বক্তব্য রাখেন, বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আশরাফুল হক উজ্জল, জাতীয় মুক্তি কাউন্সিল কুষ্টিয়া জেলা কমিটির সভাপতি সজীব রায়,সদস্য এমদাদ রানা, সাধন কর্মকার, আলম হোসেন বিদ্যালয়ের সাবেক সহকর্মী বজলার রহমান, সাংবাদিক হাসান আলী, বাংলাদেশ লেখক শিবির কুষ্টিয়ার আজিজুর রহমান, প্রয়াত গোলাম আজম মাষ্টারের পরিবারের পক্ষে এম এ কাইয়ুম প্রমুখ।

 

এসময় বক্তরা বলেন, মানুষ গড়ার কারিগড় নৈতিক আদর্শের একজন নির্ভিক দৃঢ়চেতা মানুষ হিসেবে গোলাম আজম (সাইফুল আজম)ছিলেন সত্যিকার অর্থেই অনুকরণ ও অনুসরণযোগ্য ব্যক্তিত্ব। ব্যক্তি জীবনে তিনি জীবিকা নির্বাহে আদর্শিক পেশা হিসেবে বেছে নেন শিক্ষকতাকে। বিদ্যমান আর্থ-সামাজিক নানাবিধ সংকট মোকাবিলা করেও তিনি তার নৈতিক অবস্থানকে সুদৃঢ়তার সাথে অক্ষুন্ন রেখে জীবন যুদ্ধের একজন সফল সৈনিক। তবে সবকিছু ছাপিয়ে একজন বর্ণিল রানীতিক হিসেবে সমাজের খেটে খাওয়া মেহনতী শ্রমিক কৃষকের শোষণ-নিপীড়ন মুক্তির সংগ্রামে ছিলেন অবিচল। রাজনৈতিক ভাবে তিনি জাতীয় মুক্তি কউন্সিল কুষ্টিয়ার শীর্ষ নেতা হিসেবে অর্পিত সাংগঠনিক দায়িত্ব পালনে ছিলেন একনিষ্ঠ অগ্রসৈনিক। তাঁর এমন অকাল প্রয়ানে সংগঠনের অপূরনীয় ক্ষতি হয়েছে উল্লেখ করে রেখে যাওয়া অসমাপ্ত সংগ্রামকে অবিচল রাখতে হবে বলেও মনে করেন নেতৃবৃন্দ।

 

 

তবে পেশাগত জীবনে দি ওল্ড কুষ্টিয়া হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পালনকালে নানামুখী নির্যাতন-নিষ্পেষনে তিনি চরমভাবে মানসিক যন্ত্রনায় বিপর্যস্ত হওয়াটাকেও এই অকাল মৃত্যুর জন্য দায়ি উল্লেখ করে তার দেখিয়ে যাওয়া পথ ধরে রেখে যাওয়া বিদ্যালয়টি যেন উত্তরসূরীদের কাছে নিরাপদ থাকে এবং কোমলমতি শিক্ষার্থীরা যেন সত্যিকারের আদর্শ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ মানবতা ও মানুষের কল্যানের উপযুক্ত সৈনিক হয়ে উঠতে পারে সেদিকে খেয়াল রাখার উদ্বাত্ত আহবান করেন বক্তারা।

পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।