সারাদেশে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা এবং ধর্ষণের প্রতিবাদে কুষ্টিয়ায় মানববন্ধন ও সমাবেশ

এনামুল হক রাসেল এনামুল হক রাসেল

,সম্পাদক, দ্য বিডি রিপোর্ট

প্রকাশিত: ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৭, ২০২০

নিজস্ব প্রতিনিধি: সারাদেশে নারীর প্রতি সহিংসতা, ধর্ষণ খুনের প্রতিবাদে কুষ্টিয়ায় মানববন্ধন ও সমাবেশ করেছে বিভিন্ন সংগঠন। বুধবার বেলা ১১টায় পাবলিক লাইব্রেরী মাঠে সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কুষ্টিয়া জেলা শাখা এবং ফেয়ারের যৌথ উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলামের সভাপতিত্বে এই মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

 

 

 

সমাবেশে সারা দেশে আশঙ্কাজনক হারে বেড়ে যাওয়া নারী ও শিশুর প্রতি পাশবিক সহিংসতা এবং ধর্ষণের প্রতিবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন, মানববন্ধন ও সমাবেশ অংশ নেওয়া নেতৃবৃন্দ ও সুধীজন। এর আগে কুষ্টিয়ায় ছাত্র-ছাত্রীদের ব্যানারে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করে। পরে মিছিলটি শহরের থানা মোড়ে গিয়ে শেষ হলে সেখানে সংক্ষিপ্ত প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এই কর্মসূচীতে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের ব্যানার ও ফেস্টুন নিয়ে সংহতি জানিয়ে অংশ নেয়।

 

 

 

সমাবেশে বক্তারা বলেন, দেশব্যাপী নারী ও শিশু ধর্ষনসহ হত্যাকান্ডের ঘটনা মহামারি ব্যাধীর মতো সংক্রমিত হয়েছে। প্রতিটা ঘটনার পরই র্এ বিচার ও শাস্তির দাবিতে রাজপথে দাঁড়ানো এখন স্বাভাবিক রীতিতে পরিনত হয়েছে। এর প্রধান কারণ এজাতীয নিষ্ঠুর নির্মম ঘটনার সুষ্ঠু বিচারহীনতা। মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০লাখ শহীদের আত্মবলিদান ও ২লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমহানির মধ্যেদিয়ে অর্জিত স্বাধীন দেশের নাগরিকদের জানমালের নিরাপত্তার দাবিতে এখনও রাস্তায় দাঁড়াতে হয়। অথচ আত্মত্যাগে অর্জিত স্বাধীন দেশের সংবিধানের রক্ষা কর্তাদের ব্যর্থতার দায়েই আজ এই মহামারির মুখে দেশবাসী চরম বিপন্নবোধ করছে। দেশের সু-শাসন প্রতিষ্ঠায় যারা জনগণের ট্যাক্সের টাকার সম্মানী ভাতা বা মাসিক বেতনের বিনিময়ে নিজ নিজ অবস্থানে অর্পিত দায়িত্ব পালনের অঙ্গীকার করেছেন তারা তাদের দায়িত্ব পালনে সম্পূর্নরূপে ব্যর্থতার কারণেই আজ বিচাহীনতার সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠা পেয়েছে যার ফলে দেশব্যাপী নারী ও শিশু নির্যাতনের ঘটনা লাগাম ছাড়া বা নিয়ন্ত্রনহীন হয়ে পড়েছে। ক্রসফায়ার বা নতুন আইনের চেয়ে বেশী জরুরী প্রচলিত আইনের যথাযথ প্রয়োগ ও বাস্তবায়ন। অন্যথায় শত সহ¯্র নতুন আইন করেও এর কোন সমাধান সম্ভব নয়।

 

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে গৃহবধু মীম হত্যাকান্ডে প্রতিবাদ ও জড়িতদের গ্রেফতারসহ দৃষ্টান্তমুলক বিচার দাবিতে একাধিক কর্মসূচী পালিত হলেও অদ্যবধি ৩সপ্তাহ অতিক্রম করলেও দৌলতপুর থানা পুলিশ এখনও পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে না পারাটা রহস্য জনক এবং চরম হতাশা জনক বলে দাবি করেন মানব বন্ধনে অংশ নেয়া মীমের পরিবার।

 

 

 

সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, সাংস্কৃতিক কর্মী আলম আরা জুঁই, কনক চৌধুরী, জেলা বাসদের আহŸায়ক শফিউর রহমান শফি, জেলা জাসদের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক কারশেদ আলম, সাবেক ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুল মোমেন, অধ্যাপত জামিরুল ইসলাম, সাংবাদিক ও মানবাদিকার কর্মী হাসান আলী, সম্মিলিত সামাজিক আন্দোলন কুষ্টিয়ার সাধারণ সম্প্দাক সাংবাদিক শরীফ বিশ^াস, ফেয়ার’র নির্বাহী পরিচালক দেওয়ান আখতারুজ্জামান, মহিলা পরিষদ সভাপতি নিলুফার ইয়াসমিন রিনা, মানবাধিকার কর্মী তাজনিহার বেগম ও আছমা আনসারী, প্রবীণ হিতৈষী সাধারণ সম্পাদক খাদেমুল ইসলাম, সিডিএলের নির্বাহী প্রধান আকতারী সুলতানা, নিহত গৃহবধু মীমের পিতা স্কুল শিক্ষক মহিবুল ইসলাম ও মাতা তাজমা খাতুন, যুব প্রত্যয় কুষ্টিয়ার সাধারণ সম্পাদক সুমন আহমেদ, কালের কন্ঠ শুভসংঘ কুষ্টিয়া সাধারণ সম্পাদক সম্পা আফরীন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট সভাপতি লাবনী সুলতানা ও সমাজতান্ত্রিক মহিল্ াফোরাম সভাপতি নুরমুর্শেদা ভায়োলিন প্রমুখ।

 

পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।