ভেড়ামারার গোলাপনগরে পদ্মানদীর পাড়ে দৃষ্টিনন্দন পার্ক

এনামুল হক রাসেল এনামুল হক রাসেল

সম্পাদক, দ্য বিডি রিপোর্ট ২৪ ডটকম

প্রকাশিত: ৮:১০ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০
গোলাপনগরে পদ্মানদীর পাড়ে দৃষ্টিনন্দন পার্ক

নিজস্ব প্রতিনিধি: মনিগ্রুপের চেয়ারম্যান তরুণ শিল্পপতি মনিরুল ইসলাম মনি ভেড়ামারায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও পদ্মার পাড়ে নিমার্ণ করেছেন দৃষ্টিনন্দন মনি পার্ক সহ বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কাজ । মানুষের বিনোদনের জন্য ভেড়ামারার গোলাপনগরের পদ্মানদীর পাড়ে নির্মাণ করেছেন দৃষ্টিনন্দন মনি পার্ক তরুণ শিল্পপতি মনিরুল ইসলাম মনি, একজন নিবেদিত প্রাণ ও মানবতাবাদী সমাজকর্মী হিসেবে এলাকার গণমানুষের হৃদয়ের মনিকোঠায় স্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছেন।

 

 

ভেড়ামারার বাহাদুরপুর ইউপির কৃতিসন্তান মনিরুল ইসলাম মনি একজন তরুণ শিল্পপতি ও শিল্পোদ্দ্যোক্তা। এলাকার বেকারদের কর্মসংস্থানের চিন্তা থেকেই তিনি নিত্যনতুন কলকারখানা তৈরি করার পরিকল্পনা নিয়ে সামনে এগোনোর চেষ্টা করছেন।

 

 

ইতোমধ্যেই মনিগ্রুপের মাধ্যমে এলাকার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বেকার যুবকের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে। কর্মসংস্থানের পাশাপাশি এলাকায় প্রয়োজনীয় বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণেও মনি গ্রুপের কর্ণধার মনিরুল ইসলাম মনি অগ্রণীভূমিকা পালন করে চলেছেন।

 

 

সাম্প্রতিক সময়ে ভেড়ামারা উপজেলা পরিষদ কম্পাউন্ডে প্রায় ২০লাখ টাকা ব্যয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার নির্মাণ, ঐতিহ্যবাহী দামুকদিয়া হাইস্কুল মাঠে “মনিমুক্ত মঞ্চ”, পদ্মানদীর উপর নির্মিত লালনশাহ্ সড়ক সেতুর ভেড়ামারা পাড়ের বঙ্গবন্ধু প্লাজার কাছে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ, ভেড়ামারা থানা কম্পাউন্ডের মধ্যে ব্যাডমিন্টন কোর্ট ও দৃষ্টিনন্দণ গোলঘর মনিগ্রুপের অর্থায়ণে নির্মিত হয়েছে।

 

 

এসবের বাইরেও তরুণ শিল্পপতি মনিরুল ইসলাম মনি একজন মানবিক ব্যক্তিত্ব হিসেবেও ক্রমশঃই নিজেকে পরিচিত করতে সক্ষম হয়েছেন। চলমান করোনা পরিস্থিতিতে হতদরিদ্র, কর্মহীন ও আকষ্মিক বেকার হয়ে পড়া মানুষের কল্যাণে মনিগ্রুপের অবদান অত্যন্ত প্রশংসনীয়। এলাকার হতদরিদ্র ও চিকিৎসাসেবা ও শিক্ষাবঞ্চিত সর্বস্তরের মানুষ ও শিক্ষার্থীদের অকাতরে দান-অনুদান ও সহযোগিতা করে চলেছেন তিনি।

 

 

এমন একজন সমাজহিতৈষী তরুণের দেখাদেখি এলাকার অন্যান্য ধর্নাঢ্য ব্যক্তিরাও মানবসেবাসহ বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়নে অবদান রাখুক, এপ্রত্যাশা এলাকার সমাজসচেতন মহলের।

 

moni park River view

Gepostet von Moni Monirul Islam am Sonntag, 20. September 2020

পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।