পশু-খাদ্যের দাম ৩ গুন: ঠকানাে হচ্ছে ত্রেতাদের

এনামুল হক রাসেল এনামুল হক রাসেল

,সম্পাদক, দ্য বিডি রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৪:৪১ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০২০

সাহাজুল সাজু : পবিত্র ঈদুল আযহা অর্থাৎ কোরবানীর ঈদ আর মাত্র এক সপ্তাহ বাকী। কােরবানীকে সামনে রেখে মেহেরপুরের গাংনীতে গো-খাদ্য (ঘাস) বিক্রেতাদের পোয়া বারো অবস্থা। ইতো মধ্যেই পবিত্র ঈদ উপলক্ষে কোরবানীর পশু হিসাবে গরু ছাগল ক্রয় শেষ পর্যায়ে। এবছর প্রবল বর্ষণে মাঠ-ঘাট ইতোমধ্যেই ডুবে গেছে। সে কারণে গো-খাদ্য হিসাবে ঘাস বিচালীর চরম সংকট দেখা দিয়েছে।

 

 

কোরবানীর আগে গরু ছাগল খামারীরা তাদের পশুদের খাদ্য ক্রয়ে হিমসিম খাচ্ছে। একদিকে বাজারে পশু খাদ্যের উর্ধ্বমূল্য। অন্যদিকে বিচালী বিক্রি হচ্ছে চড়া দামে। পণ প্রতি সাড়ে ৩শ’ থেকে ৪ শ’ টাকা। একই ভাবে বাজার গুলোতে ঘাস বিক্রেতারা অধিকমূল্যে তাদের পশু খাদ্য নেপিয়ার ঘাস, কাঁঠাল পাতা ,গ্যামা পাতা, ভুইরুর ঘাস ইত্যাদি পরিমাণে সামান্য দিয়ে কোরবানী ক্রেতা পশু মালিকদের জিম্মি করে দাম বাড়িয়ে অধিক মূল্যে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। ফলে ক্রেতাদের সুযোগ পেয়ে ঠকানো হচ্ছে।

 

 

 

দেখা গেছে, যৎসামান্য ঘাসের সাথে প্রবল বৃষ্টিতে ডুবে যাওয়া পানা- শেওলা লতা জাতীয় কচুরী-পানা জড়িয়ে আটি মোটা করে চড়াদামে ঘাস বিক্রি করে ক্রেতাদের প্রতারিত করছে। এক শ্রেণীর অসাধু ঘাস ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট করে এভাবে চড়াদামে ঘাস বিক্রি করছে। গাংনী উপজেলার অন্যান্য বাজারে বা জায়গায় অগের মূল্যে ঘাস বিক্রি হলেও গাংনী বাজারে ক্রেতাদের জিম্মি করে চড়া দামে ঘাস বিক্রি করা হচ্ছে। এ এ যেনাে কেউ দেখার নেই।

 

 

ঘাস ক্রেতা সাইদ হাসান জানান, সম্প্রতি কোরবানীর জন্য খাসি ছাগল ক্রয় করা হয়েছে। প্রতিদিন ছাগলের জন্য পশু খাদ্য ক্রয় করতে হয়। বাজারে কোরবানীর মৌসুমে ঘাস বিক্রেতারা গ্রাম থেকে কম মূল্যে ঘাস ক্রয় করে বেশী মূল্যে নিম্নমানের ছোট-ছোট আটি ঘাস বিক্রি করছে। কয়দিন আগেও ঘাসের আটিগুলো মোটা ছিল। ঘাসের নামে কচুরী পানা দিয়ে ক্রেতাদের ঠকানোর বিষয়টি গাংনী উপজেলা প্রশাসনের নজরে আসা উচিত।

 

 

এ ব্যাপারে চৌগাছা গ্রামের ঘাস বিক্রেতা খলিলুর রহমান জানান, মাঠ ঘাট সব ডুবে গেছে। ঘাস পাওয়া যাচ্ছে না। বিঘা বা কাঠা প্রতি আমাদের বেশী দামে ক্রয় করতে হচ্ছে। তাই বেশী দামে বিক্রি না করলে লাভ হয় না।

এ ব্যাপারে গাংনী উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তার সাথে মোবাইল ফোনে আলাপ করতে চেয়েও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।