তরুণ-তরুণীদের দিয়ে নীলছবি তৈরি, বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টির স্বামী রাজ কুন্দ্রা গ্রেফতার!

এনামুল হক রাসেল এনামুল হক রাসেল

সম্পাদক, দ্য বিডি রিপোর্ট ২৪ ডটকম

প্রকাশিত: ৩:৩৫ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০২১

দ্য বিডি রিপোর্ট ডেস্ক: পর্নোগ্রাফি ফিল্ম তৈরির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টির স্বামী রাজ কুন্দ্রাকে। সোমবার রাতের দিকে তাঁকে গ্রেফতার করেছে ভারতের মুম্বই পুলিশ। যে মামলায় ইতিমধ্যে পুলিশের জালে ন’জন ধরা পড়েছেন।

মুম্বই পুলিশের তরফে একটি বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘পর্নোগ্রাফি সিনেমা তৈরি এবং বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে তা প্রকাশ করা নিয়ে গত ফেব্রুয়ারিতে একটি মামলা দায়ের করেছিল ক্রাইম ব্রাঞ্চ। তদন্তের পর আমরা রাজ কুন্দ্রাকে গ্রেফতার করেছি। যিনি এই মামলায় মূল ষড়যন্ত্রকারী বলে মনে করা হচ্ছে। সেই মামলায় আমাদের কাছে পর্যাপ্ত তথ্য আছে।’

এক পুলিশ জানিয়েছেন, সোমবার কুন্দ্রাকে ডেকে পাঠায় মুম্বই পুলিশের প্রপার্টি সেল। রাত আটটা নাগাদ তিনি হাজিরা দেন। জিজ্ঞাসাবাদের পর তাঁকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আগেই সেই মামলায় উমেশ কামাত নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। যিনি নিজের বয়ানে দাবি করেছেন যে তিনি কুন্দ্রার সংস্থায় কাজ করতেন। ওই পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, নবি মুম্বইয়ের ভাসিতে থাকেন কামাত। গত ৬ ফেব্রুয়ারিতে গ্রেফতার হওয়া এক মডেল এবং অভিনেত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের সময় কামাতের নাম উঠে এসেছিল। ব্রিটেনের একটি সংস্থায় সমন্বয়কারী হিসেবে কাজ করতেন কামাত। যিনি ওই মডেলের থেকে অশ্লীল ভিডিয়ো নিতেন। সেগুলি পাঠিয়ে দিতেন ওই ব্রিটেনের সংস্থার কাছে। তারপর সেই ভিডিয়োগুলি ‘হটশটস’ নামে একটি অ্যাপে আপলোড করা হত।

গত ৪ ফেব্রুয়ারি পর্ন ছবি তৈরির সেই চক্রের কীর্তি ফাঁস হয়ে গিয়েছিল। মালাডের (ওয়েস্ট) মাধ এলাকার একটি বাংলোয় অভিযান চালিয়েছিলেন মুম্বই পুলিশের প্রপার্টি সেলের এক আধিকারিক। ওয়েব সিরিজ এবং শর্ট ফিল্মে কাজ দেওয়ার নামে তরুণ-তরুণীদের ফাঁসানোর অভিযোগে পাঁচজনকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। যাঁরা ওই তরুণ-তরুণীদের পর্ন ছবিতে অভিনয় করতে বাধ্য করতেন বলে অভিযোগ।

পুলিশের দাবি, সেই ভিডিয়োগুলি বিভিন্ন পর্ন সাইট এবং মোবাইল অ্যাপে আপলোড করা হত। ধৃত পাঁচজনকে জিজ্ঞাসাবাদের পর ওই মডেলকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। বাংলো থেকে ৫.৬৮ লাখ টাকার সামগ্রী উদ্ধার করেছিল পুলিশ। যা ভিডিও তৈরির জন্য ব্যবৃহত হত।

মুম্বইয়ের পুলিশ কমিশনার জানান, এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে পুলিশের কাছে একটি মামলা দায়ের হয় যে, পর্ন তৈরি হচ্ছে ও মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে তা পাবলিশ করা হচ্ছে। আমরা ১৯/০৭/২১ তারিখে রাজকুন্দ্রাকে গ্রেফতার করেছি। এই ঘটনার মূল চক্রি তিনি। এ সম্বন্ধে যথেষ্ট প্রমাণ আমাদের হাতে আছে। তদন্ত চলছে।’

যদিও গ্রেফতার করা হয়েছে তবে তদন্ত কতটা এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যাবে সেই ব্যাপারে অনেকেই সন্দিহান। কারণ রাজ কুন্দ্রার ব্রিটিশ নাগরিকত্ব রয়েছে।

দ্বিতীয়তঃ মোবাইল অ্যাপে পর্নোগ্রাফির শুটিংয়ের বিষয়ে অনেক আইনি জটিলতা রয়েছে। নির্দিষ্ট করে সেখানে পর্নোগ্রাফি শুটিংয়ের অপরাধ সংক্রান্ত বিষয়ে বলা নেই।

তৃতীয়তঃ অ্যাপটিতে যে কেউ লাইভ স্ট্রিমিং করতে পারে। তাই অ্যাপ এর মালিককে বা কাউকে প্রয়োজন পড়ে না। ফলে যারা শুটিং করছিলেন তারা যদি নিজেরাই স্বইচ্ছায় শুটিং করেছিলেন বলেন, সে ক্ষেত্রে অ্যাপের মালিকের উপর কোনও দায় বর্তায় না।

বেশ কয়েকদিন ধরেই মুম্বই ক্রাইম ব্রাঞ্চ রাজকে জিজ্ঞাসাবাদ করছিল। তবে রাজ প্রথম থেকেই আত্মবিশ্বাসী ছিলেন। আজ সকালেও টুইট করে ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে রাস্তার বাধা সাময়িক। অর্থাৎ আকারে-ইঙ্গিতে তিনি বোঝাতে চেয়েছিলেন অশ্লীলতার দায়ে তাকে বেশি দিন গারদের ওপারে রাখা ক্রাইম ব্রাঞ্চের কম্ম নয়। এখন দেখার যৌনতার এই জাল কিভাবে কেটে বেরিয়ে আসেন শিল্পার স্বামী।

 

এর আগেই শার্লিন চোপড়া এবং পুনম পাণ্ডে মহারাষ্ট্র সাইবার সেলকে জানান রাজ কুন্দ্রার হাত ধরেই তাঁরা অ্যাডাল্ট ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে এসেছেন। শার্লিন চোপড়াকে প্রত্যেক প্রজেক্টের জন্য ৩০ লক্ষ টাকা করে দিতেন রাজ কুন্দ্রা। রাজের হয়ে শার্লিন এমন ১৫ থেকে ২০ টি প্রজেক্টে কাজ করেছিলেন।

পাঠকের মতামতের জন্য কর্তৃপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।