ঢাকা, ২২শে সেপ্টেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

কুষ্টিয়ায় গ্রেফতার মহিবুলের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী ও যুবলীগ নেতা সুজনের ৩দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

এনামুল হক রাসেল

,সম্পাদক, দ্য বিডি রিপোর্ট


প্রকাশিত: ১:২৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২০

নিজস্ব প্রতিনিধি: কুষ্টিয়ায় জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে অন্যের জমি রেজিষ্ট্রেশন ও দখলের ঘটনায় করা মামলার এজাহার নামীয় ও টাকা বিনিয়োগকারী হার্ডওয়ার ব্যবসায়ী মহিবুল ইসলাম(৪০) আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছেন। একই সাথে মামলার অপর আসামী শহর যুবলীগের(সদ্য বিলুপ্ত কমিটির) আহবায়ক আশরাফুজ্জামান সুজনের ৩দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

 

 

 

 

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কুষ্টিয়া মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক আকিবুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানন, রবিবার সন্ধায় ডিবি পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার কুষ্টিয়া শহরের বড়বাজার এলাকার হাজী মোহাম্মদ আলীর ছেলে মহিবুলকে কুষ্টিয়া অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আমলী আদালতের বিচারক রেজাউল করীমের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়ায় তাকে জেল হাজতে প্রেরণের আদেশ দেন।

 

 

 

 

উল্লেখ্য, জাতীয় পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে একটি চক্র নিজেরাই ক্রেতা-বিক্রেতা সেজে অন্যের জমি রেজিষ্ট্রেশন ও দখলের ঘটনায় কয়েকটি গণমাধ্যমে অনুসন্ধানী সংবাদ প্রচার হয়। পরে এই জালিয়াত চক্রের বিরুদ্ধে শহরের এন এস রোডের বাসিন্দা এম এম এ ওয়াদুদের প্রায় ১০০ কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি বিক্রয় ও হস্তান্তর প্রক্রিয়ার মাধ্যমে দখল চেষ্টার অভিযোগে ১৮ জনের নাম উলেখসহ ১০/১২ অজ্ঞাত ব্যক্তির বিরুদ্ধে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। এমামলার এজাহার নামীয় ৭জনকে গ্রেফতার করে আদালতে সৌপর্দ করে পুলিশ।

 

 

 

 

গ্রেফতার অন্য আসামীরা হলেন- কুষ্টিয়া শহরের আড়ুয়াপাড়া এলাকার খন্দকার আবুল হোসেন ছেলে মোঃ ওয়াদুল ওরফে মিন্টু খন্দকার(৬০),কুমারখালী উপজেলার শালঘর মধুয়া গ্রামের আতিয়ার শেখের ছেলে মোঃ মিলন হোসেন(৩৮), মিন্টু খন্দকারের বোন লাহিনী দাসপাড়ার বাসিন্দা সাত্তার শেখের স্ত্রী ছানোয়ারা খাতুন(৫০) এবং অপর বোন খন্দকার আব্দুল আজিজেরর স্ত্রী মোছাঃ জাহানারা খাতুন(৪৫)। একই সাথে পরিচয়পত্র জালিয়াতি করে জমি রেজিষ্ট্রেশনের ঘটনায় ক্রেতা হিসেবে জড়িত মিরপুর উপজেলার সাহাজ উদ্দিনের ছেলে মহিবুল ইসলাম(৪৫)।

 

পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।
x