আপনারা এতো ধার্মিক মানুষ! সবাই মরে গেলে এমন ঈমানদার মানুষদের কি এ মসজিদ আর পাবে?

এনামুল হক রাসেল এনামুল হক রাসেল

,সম্পাদক, দ্য বিডি রিপোর্ট

প্রকাশিত: ৫:২৩ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ৭, ২০২০
ফাইল ছবি

দ্য বিডি রিপোর্ট ডেস্ক: মঙ্গলবার রাতে কুষ্টিয়া ভেড়ামারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সোহেল মারুফ ফেসবুক ষ্টাটাস দেন । ফেসবুকে দেওয়া সেই ষ্টাটাসটি পাঠকদের জন্য
নিম্নে হুবুহু তুলে ধরা হলো :

সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে বরাবরের মতো সন্ধ্যার পরে অভিযানে আমি আর ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, ভেড়ামারা থানা। বামনপাড়া এসে দেখি এক মসজিদে এশার নামাজ হচ্ছে।একজন জানালেন, মুসল্লী অনেক বেশি। আমি আর ওসি সাহেব মসজিদের বাইরে নামাজ শেষ হওয়ার অপেক্ষায় থাকলাম। নামাজ শেষে জিজ্ঞেস করলাম, ইমাম কে? এক মুরুব্বি জানালেন, ইমাম আসেনি, তিনি নামাজ পড়িয়েছেন।বললাম জানেন না, ওয়াক্তের নামাজে ৫ জনের বেশি নামাজ নিরুৎসাহিত করা হয়েছে।তিনি জানেন বললেন।
তাদেরকে বললাম, যাক এতোগুলো মুসল্লি পেয়ে ভালোই হয়েছে। আমি আর ওসি সাহেব আসলে ৫ জন লোক খুঁজছি যারা করোনা ভাইরাসে মৃত মানুষের জানাযা পড়াবেন। জানেন তো, কেউ রাজি হচ্ছে না, আপনাদের মধ্যে কেউ দায়িত্ব নিলে আমাদের সুবিধা হয়। আপনারা ভয় উপেক্ষা করে যেহেতু নামাজে এসেছেন।
উত্তর নেই। আবারও অনুরোধ করলাম। চুপ সবাই। কিছুক্ষণ পর এক বয়স্ক লোক বললেন, স্যার জানেন তো বিষয়টা আতংকের। তাই আমরা কিভাবে নাম দেই?আমরা সেখানে কিভাবে যাই?
বললাম, তাহলে কি আমাকে আর ওসি সাহেবকেই সব লাশ কবর দিতে হবে? উত্তর নেই।
এবার ধমক দিয়ে বললাম, তাহলে দলে দলে মরার লাইনে না গিয়ে বাড়িতে নামাজ পড়ুন।
তারপর বললাম, আপনারা মরে গেলে ধর্মের সেবা কে করবে? আপনারা এতো ধার্মিক মানুষ!!সবাই মরে গেলে এমন ঈমানদার মানুষদের কি এ মসজিদ আর পাবে???
এবার তারা খুব খুশি। ঠিক বলেছেন স্যার, এভাবে মারা যাওয়া ঠিক হবে না। আমরা সরকারি নির্দেশনা মেনে চলব।।

সারা পথ একটা ভাবনা আমাকে আচ্ছন্ন করে রাখল-জ্বর হলে বাড়ি থেকে বের করে দিচ্ছি, জানাযায় যাচ্ছি না মরার ভয়ে, সরকারি নির্দেশনা মানছি না,,,,আসলে আমরা কি????

এর আগে সোমবার ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়। মসজিদে খতিব, ইমাম, মুয়াজ্জিন,খাদেম মিলে পাঁচ ওয়াক্তের নামাজে ৫ জন, জুমআর জামায়াতে ১০ জন জামায়াতে অংশগ্রহণ করতে পারবে। মসজিদে না যেয়ে নিজ ঘরেই নামাজ আদায়ের পরামর্শ দেয় ধর্ম মন্ত্রণালয়।

পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।